বিনিয়োগ

বিনিয়োগকারীদের জন্য যা বলা দরকারঃ

একুশ শতকে মানব জাতির সবচেয়ে গুরুতর সমস্যা হলো স্বাস্থ্য সমস্যা। সভ্যতা যত উন্নত ও যান্ত্রিক হচ্ছে, পরিবেশ তত দূষিত হচ্ছে। ভেজাল খাদ্যে নিত্য নতুন স্বাস্থ্য সমস্যা এখন আমাদের নিত্য সঙ্গী। ডায়াবেটিস,এ্যাজমা, ক্যান্সার এর মত অনিরাময়যোগ্য (তবে নিয়ন্ত্রনযোগ্য) রোগ এখন প্রায় প্রতি পরিবারেই।
স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমাতে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী অনেক উদ্যোগ থাকলেও অসাধু ডায়াগনোষ্টিক ও ক্লিনিক ব্যবসায়ী, দালাল চক্রসহ দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার কারণে মানুষের এই মৌলিক অধিকারটুকু এখন প্রচন্ড হুমকীর সম্মুখীন। বিশেষ করে নির্দিষ্ট আয়ের ব্যাপক জনগোষ্ঠী ও দরিদ্র শ্রেণীর রোগীদের অবস্থা সবচেয়ে করুণ। অসহায় এবং জিম্মি দশায় নিপতিত অনেক পরিবার। চিকিৎসা ক্ষেত্রে নানা রকম ভোগান্তি এবং অনিয়মের কারণে ব্যপক অর্থ বিনাশ ও অকালমৃত্যু এখন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যপার।

চলমান কার্যক্রমঃ

চিকিৎসাক্ষেত্রের এই দূরাবস্থা থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে আমরা দীর্ঘদিন থেকে ব্যতিক্রমী কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছি। আমাদের সেবামূলক প্রতিষ্ঠান এঞ্জেল হোম ফাউন্ডেশান গত ৫ বছর ধরে দরিদ্র মা ও শিশুদের বিনামূল্যে চিকিৎসা, ঔষধ ও পরামর্শ সেবা প্রদান করছে।
এর পাশাপশি এঞ্জেল ডায়াগনোষ্টিক সেন্টার গত ৩ বছর ধরে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে স্বল্পমূল্যে সবধরনের ডায়াগনোষ্টিক সেবা প্রদান করছে। এঞ্জেল ডায়াগনোষ্টিক সেন্টার প্রতি শুক্রবার ডায়াবেটিস রোগীদের সম্পূর্ণ বিনামূল্যে প্রয়োজনীয় সব সেবা প্রদান করছে। প্রতি মাসে বিনামূল্যে অর্থোপেডিক্স, মেডিসিন, গাইনী ও নাক, কান, গলা রোগের বিনামূল্যে স্বাস্থ্যক্যাম্প পরিচালনা করছে।

আমাদের বর্তমান উদ্যোগ

সময়ের প্রয়োজনে ও রোগীদের সেবার মানকে আরো বৃহত্তর ও উন্নত পরিসরে নিয়ে যাবার লক্ষ্যে আমরা ডায়াগনোষ্টিক সেন্টারকে সর্বাধুনিক করার উদ্যোগ নিয়েছি এবং সকলের সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সর্বাধুনিক হাসপাতাল করার উদ্যোগ নিয়েছি।
এতসব একা করা সম্ভব নয়। আমাদের সেবা কার্যক্রমে সাধারণ মানুষের অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে চাই। সকলকে সম্পৃক্ত করতে চাই। প্রত্যেকের ন্যূনতম বিনিয়োগের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের অংশীদার হওয়ার সুয়োগ আমরা করেছি। সাধারণ পরিবার গুলোকে আমরা এই সুযোগের আওতায় নিয়ে আসতে চাই। একজন রোগী এই হাসপাতালে শুধু রোগী হিসাবে নয়, পাশাপাশি যেন একজন অংশীদার হিসাবেও চিকিৎসার সকল সুযোগ গ্রহণ করতে পারেন। একজন রোগী যেন নিজেকে অসহায় মনে না করেন। আমরা সকলের অধিকার, মর্যাদা ও সেবার সুবিধার ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই সাম্য।

এই লক্ষ্যে আমাদের কর্মসূচী

সর্বাধুনিক একটি স্মার্ট হাসপাতাল বাস্তবায়নে যথেষ্ট পরিমাণ বিনিয়োগ প্রয়োজন। আমরা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিনিয়োগ সংগ্রহ করে বৃহত্তর সেবা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলছি। আপনিও নিম্নে উল্লেখিত যে কোন একটি পদ্ধতিতে বিনিয়োগ করে এই সেবামূলক প্রতিষ্ঠানে অংশীদার হতে পারেন। আপনার এই বিনিয়োগ আপনাকে যেমন বৎসর শেষে মুনাফা দিবে, পাশাপশি আপনার পরিবারসহ আপনার কাছের পরিজন পাবেন স্বাস্থ্য নিরাপত্তা। আর আপনার অংশগ্রহণ সুযোগ করে দিবে অবহেলিত মানুষের বিনা মূল্যে চিকিৎসা সুবিধা। মানুষ হয়ে মানুষের প্রতি দায়িত্ববোধ ও নিজেদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার জন্যে আমাদের এই মহতী উদ্যোগে আপনাকেও শরীক হওয়ার জন্যে উদাত্ত আহবান জানাচ্ছি।

কেন বিনিয়োগ করবেন ?

  • আপনি একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের অংশীদার হচ্ছেন যেখানে আপনি বাৎসরিক ভিত্তিতে লভ্যাংশ পাবেন পাশাপশি মানবতার সেবায় সরাসরি অংশগ্রহণ করতে পারছেন।
  • আপনার বা আপনার নিকটস্ত যে কারও স্বাস্থ্যগত যে কোন সমস্যা আপনার নিজের প্রতিষ্ঠানে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে চিকিৎসা করাতে পারছেন।
  • একটি গ্রুপ অব কোম্পানীর সুদমুক্ত, পরিচ্ছন্ন, লাভজনক খাতে বিনিয়োগ ও ব্যবসায়িক অংশীদার হওয়ার সুযোগ।
  • আপনার চলমাান বা অলস টাকার সামাজিক সেবা খাতে সর্বোচ্চ লাভসহ বিনিয়োগের নিশ্চয়তা।
  • কোম্পানীর রয়েছে একটি ঝুঁকি তহবিল।
  • বিনিয়োগকারীদের মাঝে কোন সদস্য যদি গুরুতর অসুস্থ হয়ে যায়, তাহলে তাঁকে উন্নত চিকিৎসার লক্ষ্যে দেশে বা দেশের বাহিরে বিনামূল্যে চিকিৎসার সুযোগ। পাশাপশি কোন বিনিয়োগকারীর অকাল মৃত্যু হলে বিনিয়োগকারীর পরিবারকে স্বাবলম্বী করার দায়িত্ব কোম্পানী গ্রহণ করবে।
  • বিনিয়োগকারী ন্যূনতম ৩টি প্রজেক্টের অংশীদার হলে এবং বিনিয়োগের বয়স ৩ বছর অতিক্রান্ত হওয়ার পর তিনি মাসিক ভিত্তিতে লভ্যাংশ ভোগ করতে পারবেন।

বিনিয়োগ বন্টন নীতিমালা

প্রিমিয়াম বিনিয়োগ: প্রিমিয়াম বিনিয়োগ এর মূল্য এক-কালীন ১০,০০,০০০ টাকা। যিনি প্রিমিয়াম বিনিয়োগ ক্রয় করবেন, তিনি একজন পরিচালকের মর্যাদা ভোগ করবেন। বাৎসরিক লভ্যাংশ ছাড়াও প্রতি মাসে নির্ধারিত সম্মানিভাতা ভোগ করবেন। প্রিমিয়াম বিনিয়োগকারী কোম্পানীর পরবর্তী প্রজেক্টে স্ময়ংক্রিয় ভাবে একটি অংশীদারিত্ব পাবেন।

ভিআইপি বিনিয়োগ : ভিআইপি বিনিয়োগের এক-কালীন মূল্য ৫,০০,০০০ টাকা । তিনি অত্র প্রতিষ্ঠাণে ভি.আই.পি বিনিয়োগকারীর মর্যাদা পাবেন। বাৎসরিক লভ্যাংশ ছাড়াও প্রতি মাসে নির্ধারিত সম্মানিভাতা ভোগ করবেন। ভিআইপি বিনিয়োগকারী কোম্পানীর পরবর্তী প্রজেক্টে স্ময়ংক্রিয় ভাবে একটি অংশীদারিত্ব পাবেন।
সুবর্ণ বিনিয়োগ : সুবর্ণ বিনিয়োগে এক-কালীন মূল্য ১,০০,০০০ টাকা । তিনি অত্র প্রতিষ্ঠাণে ভি.আই.পি বিনিয়োগকারীর মর্যাদা পাবেন। বাৎসরিক লভ্যাংশ ছাড়াও কোম্পানীর পরবর্তী প্রজেক্টে স্ময়ংক্রিয় ভাবে একটি অংশীদারিত্ব পাবেন।
সাধারণ বিনিয়োগ : প্রতিটি সাধারণ বিনিয়োগের একক মূল্য ১০,০০০ টাকা। যে কোন ব্যক্তি এক বা একাধিক সাধারণ বিনিয়োগ করতে পারবেন।

বিনিয়োগকারীর প্রাপ্ত সুবিধা সমূহ :

  • কোম্পানীর হাসপাতালসহ সকল কার্যক্রম কম্পিউটারাইজড ও আধুনিক সফটওয়্যার এর মাধ্যমে নিয়ন্ত্রিত ও পরিচালিত।
  • প্রত্যেক বিনিয়োগকারী নিজ নিজ বিনিয়োগের মূল্য মোতাবেক বাৎসরিক ভিত্তিতে মুনাফা ভোগ করবেন।
  • সকল শ্রেণীর বিনিয়োগকারী অত্র কোম্পানীর হাসপাতাল সহ সকল প্রতিষ্ঠানে ভিআইপি মর্যাদা পাবেন।
  • বিনিয়োগকারীর নিজ পরিবারের জন্য ৫০% ও ঘনিষ্ঠ আত্মীয়দের জন্য ৩৫% ও যে কোন ব্যক্তিকে ২৫% হ্রাসকৃত মূল্যে সকল প্রকার শিক্ষা ও চিকিৎসা সুবিধা পাবেন।
  • সকল বিনিয়োগকারীকে কোম্পানীর পক্ষ থেকে কোড নাম্বারসহ পরিচিতি মূলক কার্ড সরবরাহ করা হবে।

বিনিয়োগ এর জন্যে যা প্রয়োজন :

  • জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি
  • পাসপোর্ট সাইজের ৩ কপি সদ্য তোলা রঙ্গিন ছবি।
  • নমিনীর সদ্যতোলা ০১ কপি রঙ্গিন ছবি
  • অফিস কর্তৃক সরবরাহকৃত কোম্পানীর নির্ধারিত আবেদন ফরম

লভ্যাংশ প্রদানের নিয়মাবলী

Annual general meeting
প্রত্যেক বছর সকল বিনিয়োগকারীদের নিয়ে অহহঁধষ মবহবৎধষ সববঃরহম (AGM) অনুষ্ঠিতহবে। উক্ত সভায় সকলের উপস্থিতিতে বাৎসরিক আয়-ব্যয়ের হিসাব প্রদান করা হবে এবং লভ্যাংশ ঘোষনা করা হবে। এই সভায় পরবর্তী বছরে করণীয় ও বাজেট পেশ করা হবে এবং অনুমোদন নেয়া হবে।
প্রত্যেক বছর জানুয়ারী-ডিসেম্বর অর্থ বছর ধরে বাৎসরিক লভ্যাংশ ঘোষনা করা হবে।
প্রত্যেক বিনিয়োগকারীর প্রদত্ত মোবাইল নাম্বারে লভ্যাংশের যাবতীয় তথ্য ঝগঝ এ জানানো হবে।
বিনিয়োগকারীর ব্যংক এ্যাকাউন্টে লভ্যাংশ জমা করা হবে এবং লভ্যাংশ জমার কনফারমেশান মেসেজ বিনিয়োগকারীর মোবাইলে মেসেজের মাধ্যমে চলে যাবে।
এ ছাড়া কোম্পানীর জরুরী তথ্য ও সেবা সমূহের তথ্যাদি বিনিয়োগকারীর মোবাইলে মেসেজের মাধ্যমে জানানো হবে। বিনিয়োগ দলিল প্রত্যেক বিনিয়োগকারীকে বিনিয়োগের সার্টিফিকেট (দলিল) প্রদান করা হবে। যেখানে কোম্পানীর চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকের স্বাক্ষর থাকবে।
কোন কারণবশত বিনিয়োগকারীর দলিল হারিয়ে গেলে কাল বিলম্ব না করে তা অফিসে জানাতে হবে এবং অফিসে সংরক্ষিত ডুপ্লিকেট দলিলের কপি সংগ্রহ করতে হবে।
বিনিয়োগকারীর সকল তথ্য সফটওয়্যারের মাধ্যমে কম্পিউটারে সংরক্ষণ করা হবে। প্রত্যেক বিনিয়োগকারীকে একটি বিশেষ কোড নাম্বার প্রদান করা হবে।

মালিকানা হস্তান্তরের নিয়মাবলী

৩ বছর পর কোন বিনিয়োগকারী প্রয়োজনে তার মালিকানা বাজার মূল্যে কোম্পানীর নিকট বিক্রয় করতে পারবেন।
কোন বিনিয়োগকারী তাঁর মালিকানা অন্যের নিকট বিক্রয় করতে পারবেন, তবে বিক্রয়ের পূর্বে এই অফিসের ক্লিয়ারেন্স নিতে হবে এবং নতুন সদস্যের নাম অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।
বিনিয়োগকারীর অবর্তমানে তাঁর নমিনী মালিকানা লাভ করবেন।
প্রয়োজনে বিনিয়োগকারী তার প্রস্তাবিত নমিনী পরিবর্তন করতে পারবেন।

চলমান ও প্রক্রিয়াধীন প্রকল্প

সুদমুক্ত ইসলামিক মাইক্রোফাইনান্স প্রজেক্ট (চলমান) : আমরা ইচ্ছায় হোক আর অনিচ্ছায় হোক সুদের অভিশাপে জর্জরিত। সুদ আমাদেরকে আর্থিক লেনদেনের সকল শাখায় জড়িয়ে রেখেছে। অথচ ইসলামে সুদকে সম্পূর্ণরুপে হারাম করেছে। তাই আমরা মুদারাবা ক্রয়-বিক্রয় নীতিমালা অনুসরণ করে সুদমুক্ত সঞ্চয় ও ঋণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছি। যাতে আপনার-আমার সুদমুক্ত জীবন-যাপনের সুযোগ সৃষ্টি হয়।
ডায়াগনোষ্টিক সেন্টার (চলমান) : ‘স্বল্প খরচে উন্নত সেবা’ এই নীতি ধারণ করে গত ৩ বছর যাবৎ আমরা সুনামের সাথে ডায়াগনোষ্টিক কার্যক্রম পরিচালনা করছি। বর্তমানে ডায়াগনোষ্টিক সেন্টার সর্বাধুনিক করার কার্যক্রম চলছে।

সর্বাধুনিক স্মার্ট হাসপাতাল প্রজেক্ট : সেবার পরিসরকে আরো বিস্তৃত করার লক্ষ্যে ডিজিটাল প্রযুক্তির সমন্বয়ে একই সাথে সকল সেবা প্রদানের লক্ষ্যে স্মার্ট হাসপাতাল প্রজেক্ট এখন প্রক্রিয়াধীন।

ডিজিটাল স্মার্ট স্কুল এন্ড কলেজ প্রজেক্ট (প্রক্রিয়াধীন) : সর্বাধুনিক স্মার্ট স্কুল এন্ড কলেজের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন। ২০১৭ ইং সালে এই স্মার্ট স্কুল এন্ড কলেজের যাত্রা শুরু হবে। প্রক্রিয়াধীন এই সর্বাধুনিক স্মার্ট স্কুল এন্ড কলেজ হবে সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমধর্মী যা হবে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে প্রথম।

স্মার্ট ভিলেজ আবাসন প্রজেক্ট (প্রক্রিয়াধীন) : স্বল্প ও মধ্যম আয়ের মানুষের মাঝে স্বল্প মূল্যে ও কিস্তিতে আদর্শ আবাসন ব্যবস্থা বাস্তবায়ন করা হবে যা প্রক্রিয়াধীন এবং ২০১৮ ইং সালেই এর যাত্রা শুরু হবে।

ই-কমার্স ভিত্তিক সিন্দাবাদ ইন্টারন্যাশনাল লি: হালাল ও ভেজালমুক্ত পণ্যসমূহ হোম ডেলিভারীর সুবিধা রেখে এই প্রকল্প শীঘ্রই চালু হতে যাচ্ছে।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল : এশিয়ানবার্তা২৪ডটকম নামে প্রায় ১ বছর ধরে আমরা মাল্টিমিডিয়া নিউজ পোর্টাল পরিচালনা করছি। নিরপেক্ষ সঠিক সংবাদ পরিবেশন করে আমরা সংবাদ জগতের প্রায় সকলের নজর কেড়েছি। বাংলাদেশের প্রায় সকল জেলা সমূহের প্রতিনিধিদের নিয়ে আমরা তাৎক্ষণিক সংবাদ পরিবেশন করছি।
অল্প সময়ের মধ্যে প্রকাশ হতে যাচ্ছে ‘দৈনিক এশিয়ানবার্তা’ নামে জাতীয় দৈনিক সংবাদপত্র।
এঞ্জেলহোম ফাউন্ডেশান : সেবার মানসে গঠিত এঞ্জেল হোম ফাউন্ডেশান দীর্ঘ ৭ বছর ধরে অপুষ্ঠিতে আক্রান্ত শিশুদের সেবায় নিয়োজিত। এই ফাউন্ডেশানের মাধ্যমে আমরা অপুষ্ঠ শিশুদের বিনামূল্যে চিকিৎসা, পুষ্টিকর খাদ্য ও বিনামূল্যে ঔষধ ও স্বাস্থ্য সামগ্রী প্রদান করছি। পাশাপশি দরিদ্র ও গর্ভবতী মহিলাদের বিনামূল্যে সেবা প্রদান করছি।

মানুষ মানুষের জন্যে। অক্ষম ও অসহায়দের সহযোগীতা করা সক্ষম মানুষদের দায়িত্ব ও কর্তব্য। এই দায়িত্ববোধ থেকেই আমাদের সেবার পথে যাত্রা। সর্বাধুনিক স্মার্ট হাসপাতাল স্থাপন আমাদের একার পক্ষ্যে সম্ভব নয়। সকলের অংশ গ্রহণে কঠিন কাজ সহজ হয়ে যায়। বাংলায় প্রবাদ আছে, ‘একতাই বল’।
আপনার বিনিয়োগের মাধ্যমে এই মহতী কাজে অংশ গ্রহণ করে সর্বাধুনিক এই স্মার্ট হাসপাতাল স্থাপনের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে পারেন। খুলে দিতে পারেন সর্বাধুনিক সেবার দুয়ার।
তাই আপনার নিকট বিনীত আবেদন, আপনি বিনিয়োগ করুন, লাভজনক সেবা মূলক প্রতিষ্ঠানের অংশীদার হোন। নিজেদের চিকিৎসা সুবিধা নিশ্চিত করার পাশাপশি অসহায় মানুষদের সেবা পাওয়ার সুযোগ করে দিন।
স্মার্ট হাসপাতালসহ আমাদের অন্যান্য প্রকল্প সমূহ সম্পূর্ণরুপে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আপনার সহযোগীতা একান্তভাবে কামনা করছি।