রূপে-গন্ধে মাতাল করা জেসমিন করোনা সারানোর যাদু জানে

হাকীম এফ শাহজাহান :: নাম তার জেসমিন । অভিজাত নাম অ্যারাবিয়ান জেসমিন। রোমান্টিক নাম জুঁই । বাংলায় বেলি ফুল। এর রুপ আর গন্ধে আকৃষ্ট হয় না এমন মানুষ পাওয়া যাবে না।
 
জেসমিনকে বলা হয় ঘুম পাড়ানো রাণী । এই করোনা মহামারিতে জেসমিন আপনাকে নানাভাবে সুস্থ রাখতে পারে।
 
জেসমিনের সুগন্ধ শোঁকার সঙ্গে সঙ্গে যে কোন মানুষ ঘুমের প্রশান্তি অনুভব করেন ।
 
বেলিফুল সুগন্ধী শিল্পের গুরুত্বপূর্ণ কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বেলিফুলের তেল আধুনিক প্রসাধনী শিল্পে খুবই মুল্যবান। বেলিফুল থেকে মুল্যবান চেতনাশক তৈরি করা হয়। এছাড়াও বেলিফুলের তেল বিভিন্ন রোগের ওষুধ হিসেবে চমৎকার ফল দেয়।
 
করোনাভাইরাসের মুল উপসর্গ সর্দি-কাশি-হাঁচি,জ্বর আর শ্বাসকষ্ট। এসবই নিরাময় করে বেলিফুল। বিশেষ করে ব্রঙ্কাইটিস সারাতে বেলিফুলের জুড়ি নেই। ব্রঙ্কাইটিস জনিত শ্বাসকষ্ট নিরাময়ে বেলিফুল বেশ ভাল কাজ করে।
 
করোনাভাইরাস মুলত আক্রমন করে মানুষের ফুসফুসে। এই করোনাকালে আপনার ফুসফুস তাজা রাখতে বেলিফুল খুবই ভাল কাজ করবে।
 
শ্বাসকষ্ট নিরাময়ে বেলিফুলের অসাধারন ক্ষমতা আপনাকে মুগ্ধ করবে। করোনাভাইরাসের সংক্রমনে আপনার শ্বাসকষ্ট মারাত্মক পর্যায়ে যাওয়ার আগেই বেলিফুলের নির্যাস আপনাকে সুস্থ করে তুলবে।
 
করোনাকালে জ্বর মানেই কোভিড-১৯এর আতংক। তাই জ্বর থেকে নিরাময় পেতে বেলিফুলের ওষুধ অপনাকে শিান্তিতে রাখবে।
 
বেলি ফুলের মূল এবং কচি পাতা থেঁতো করে সিদ্ধ করে সেবন করলে বুকে সর্দি-কাশি ভালো হয়ে যায়।
বেলিফুলে কৃমি ভালো হয়।
 
দ্য জার্নাল অব বায়োলজিক্যাল কেমিষ্ট্রি’র গবেষণায় দেখা গেছে, ঘুমের যেকোনো ওষুধ কিংবা ভ্যালিয়াম যেভাবে কাজ করে জুঁই বা বেলি ফুলের সুগন্ধএইকভাবে স্নায়ুতে এনে দেয় প্রশান্তি ৷ যা মানুষের চোখে ঘুম আনতে সাহায্য করে৷
 
যেকোন ঘুমের ওষুধের তুলনায় প্রাকৃতিক এই উপাদানটিই বেশি কার্যকরী বলে দাবি করছেন জার্মান গবেষকরা৷
 
গবেষকদের পক্ষ থেকে নেতৃত্ব দানকারী অধ্যাপক হানজ হাটে আবিষ্কার করেছেন যে,ঘুমের ওষুধের যে উপাদানটি মানুষকে প্রশান্তি এনে দেয়,বেলি ফুলের সুগন্ধের মধ্যেও একই ধরণের উপাদান রয়েছে৷
 
শ্বাস নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বেলিফুলের সুগন্ধ ফুসফুস থেকে রক্তে যায় এবং সেখান থেকে মস্তিষ্কে যায়৷ এই সুগন্ধ মস্তিষ্কে প্রশান্তি এনে চোখে ঘুম নিয়ে আসে৷
 
কীভাবে খাবেন ?
কিছু বেলিফুল হাতে নিয়ে সুগন্ধ শুঁকে নিন। বেলিফুলের সুগন্ধ সরাসরি ফুসফুস থেকে রক্তে যায় এবং ফুসফুসকে শক্তিশালী করে।
 
বেলিফুলের চা পান করা যায়।
 
আধা চা চামচ বেলিফুলের তেল সিরাপের মত সেবন করতে পারেন।
 
বেলিফুল গাছের মুলের রস ১ চামচ এবং ১ গ্লাস ঠান্ডা পানিতে মিশিয়ে সেবন করা যায়।
 
১ চামচ বেলিফুল চূর্ণ ১ গ্লাস উষ্ণ পানির সাথে সেবন করতে পারেন।
১ কাপ পানিতে বেলিফুল গাছের মূল সিদ্ধ করে আধাকাপ থাকতে নামিয়ে ক্বাথ সেবন করলে শ্বাসকষ্টে উপকার পাওয়া যায়।
 
বেলিফুল গাছের মূল থেতো করে ১ চামচ রস সামান্য চিনি মিশিয়ে খাওয়া যায়।
৫টি বেলিফুলের পাতা বেটে আধাগ্লাস পানিতে গুলিয়ে সেবন করা যায় ।
 
সতর্কতা :
বেলি ফুলের ঘুম পাড়ানোর ক্ষমতা থাকলেও এর কোন রকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই ৷
 
বেলিফুল সেবন করলে ঘুমঘুম ভাব বেশি হবে। তাই একনাগাড়ে বেশি দিন সেবন করা থেকে বিরত থাকুন।
 
সুস্বাস্থ্যের সুখবর
[ শেফা স্মার্ট হাসপাতালের সৌজন্যে পরিবেশিত ]
 
হাকীম এফ শাহজাহান
ডিইউএমএস
হামদর্দ ইউনানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল,বগুড়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *