ঈদে স্বাস্থ্য-পুষ্টি-সুস্থতা : গোশত কতটুক খাবেন কীভাবে খাবেন

হাকীম এফ শাহজাহান :: গরুর গোশত খুবই পুষ্টিকর,শক্তিদায়ক এবং উত্তেজনা বৃদ্ধিকারক। তার মানে , একবারে ১ পোয়া, আধা কেজি কিংবা এক কেজি গোশত খেলেই আপনার শক্তি বেড়ে যাবে,মনে ফুর্তি আসবে, তা কিন্তু নয় । বরং এমনটা করলে আপনার শক্তি ও পুষ্টি দুটোই কমে যাবে। আপনি বড় ধরনের বিপদেও পড়তে পারেন। এজন্য আপনার বাড়িতে যতই বেশি গোশত থাকুক, একবার খেতে বসে তিন থেকে চার টুকরার বেশি গোশত খাবেন না।
আপনি সুস্থ হোন অথবা অসুস্থ হোন । যা খুশি তাই গোশত খাবেন এমনটা ভাবা ঠিক নয়। আপনার বয়স বেশি হোক বা কম হোক,বেশি গোশত খেলেই বেশি শক্তি হবে এমন ভাবনাও সঠিক নয়। কাজেই গোশত গরুর হোক অথবা খাসির হোক, ইচ্ছামত খাওয়ার চিন্তাটা বাদ দেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।
আপনি ঈদের দিন এবং বেশি হলে তারপর দুই দিন দুইবেলা করে গোশত খেতে পারেন। প্রতিবেলা মাঝারি সাইজের তিন থেকে চার টুকরা গোশতের বেশি না খাওয়াই নিরাপদ ।
গোশতের সঙ্গে গোটা রসুন দিয়ে রান্না করলেও গোশত খাওয়ার প্রবনতা কিছুটা কমে যাবে । দুই টুকরা গোশত বেশি খাওয়ার পরিবর্তে ১ টা রসুন খাওয়া অনেক বেশি উপকারি।
ঈদের পরদিন থেকে পোটল বেগুন ইত্যাদি সবজি দিয়ে গোশত রান্না করে খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য বেশি উপকারি।
যখন গোশত খাবেন তখন,মাছ,ডিম,দুধ খাবেন না। এগুলো খেলে আপনার উপকারের বদলে অপকার হবে বেশি।এসময় বরং টক দই খেলে উপকার পাবেন।পরিমানমত টকদই দিয়ে গোশত রান্না করলেও অনেকটা বেশি উপকার পাবেন।
গরু ও খাশির মগজ ও কলিজা অনেকের খুব বেশি পছন্দ। সবচেয়ে বেশি পুষ্টি ও শক্তি এই দুটোতেই ।তাই বলে বেশি খাবেন না। এগুলো খুবই অল্প পরিমান খেলে বেনিফিট পাবেন। বেশি খেলে হিতে বিপরীত হবে।
চর্বি এড়িয়ে চলুন। কাঁচা গোশত থেকে কেটে কেটে চর্বি বাদ দিয়ে অল্প এবং খাঁটি সরিষার তেলে রান্না করুন। ডিশভর্তি গোশত সামনে নিয়ে বসলেই বিপদ। তাই ছোট বাটিতে করে অল্প অল্প করে পরিবেশন করুন।
অতিরিক্ত গরুর গোশত অথবা খাসির গোশত শরীরের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে । আপনার হৃদরোগ নাই বলেই বেশি গোশত খেলে উপকার পাবেন তা কিন্তু নয়।যেকোন সময় আপনি অনেক বড় ঝমেলায় পড়তে পারেন।
কারণ গরুর মাংসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে সোডিয়াম, যা রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয়। আর উচ্চ রক্তচাপ থেকে হৃদরোগ, স্ট্রোক ও কিডনি জটিলতা দেখা দিতে পারে।
গরুর মাংসে যে কোলেস্টেরল থাকে সেটি বেশি বেড়ে গেলে হার্টের শিরায় জমে রক্ত জমাট বাঁধিয়ে দেয়। এতে হার্টে পর্যাপ্ত রক্ত চলাচল করতে পারে না, অক্সিজেনের অভাব হয়।যার কারণে হৃদরোগ ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বহুগুণে বেড়ে যায়।
আর্কাইভ অব ইন্টারন্যাশনাল মেডিসিনের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, যারা গরুর মাংস বেশি খান তাদের ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেক বেশি থাকে।
এছাড়া গরুর মাংস বেশি খেলে টাইপ-টু ডায়াবেটিস, মুটিয়ে যাওয়া, আরথ্রাইটিস, কোষ্ঠকাঠিন্য, ত্বকের সমস্যা ইত্যাদি নানা জটিলতা দেখা দিতে পারে।
ঈদ পেয়েছেন,কুরবানী দিচ্চেন বলেই মনের চাহিদা মত বেশি গোশত না খেয়ে পরিমিত গোশত খানিএতে শরীর ও মন দুটোই ভালো থাকবে। শরিরের শক্তি ও পুষ্টি বাড়বে।
আপনার পরিবারের সবাইকে নিয়ে সুস্ততার সঙ্গে ঈদ উদযাপন করুন। সবসময় আল্লাহ আপনাকে সুস্থ ও নিরাপদ রাখুন।
সুস্বাস্থ্যের সুখবর
[ শেফা স্মার্ট হাসপাতালের সৌজন্যে পরিবেশিত ]
হাকীম এফ শাহজাহান
ডিইউএমএস
হামদদৃ ইউনানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল,বগুড়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *